Best Educational, Knowledgeable and Important site. Rail, WBCS, Bank, Government, SSC, PRIMARY AND UPPER PRIMARY job information site. চাকরির সেরা ঠিকানা ।

Stay Conneted

Story

Showing posts with label ভূগোল. Show all posts
Showing posts with label ভূগোল. Show all posts

Tuesday, 19 November 2019

Geography (Short Question - 1)






🏵 Geography (Short Question - 1) 🏵


1. জাতীয় তাপ বিদ্যুৎ সংস্থা (N.T.P.C) কত সালে গঠিত হয়েছে ?
Ans. ১৯৭৫ সালে ।
2. ভারতের দীর্ঘতম বাঁধের নাম কী
Ans. ওড়িশার হীরাকুদঁ বাঁধ
3. ইলেকট্রনিক্স শিল্পে ভারতে কোন অঞ্চল প্রথম স্থান অধিকার করে ?
Ans. দাক্ষিণাত্যের কৃষ্ণ মৃত্তিকা অঞ্চল ।
4. ভারতের প্রথম লৌহ কারখানাটি কত সালে এবং কোথায় স্থাপিত হয়েছিল ?
Ans. ১৮৩০, তামিলনাড়ুর পোর্টোনোভা ।
5. বিশাখাপত্তনম ইস্পাত কারখানাটি কোন দেশের আর্থিক ও কারিগরী সহযোগিতায় গড়ে তোলা হয়েছে ?
Ans. পূর্বতন সোভিয়েত ইউনিয়্ন ।
6. ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ বেসরকারী লৌহ-ইস্পাত কারখানা কোনটি ?
Ans. TISCOজামসেদপুর ।
7. রাউরকেল্লা ইস্পাত কারখানাটি কোন দেশের সহযোগিতায় গড়ে উঠেছে ?
Ans. পশ্চিম জর্মানী ।

8. ভিলাই লৌহ-ইস্পাত কারখানাটি কোন দেশের সহযোগিতায় গড়ে উঠেছে ?
Ans. পূর্বতন সোভিয়েত ইউনিয়ন ।
9. ভারতে রেল-ইঞ্জিন তৈরী করে কোন সংস্থা ?
Ans. পশ্চিমবঙ্গের চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়াকর্স ।
10. ডিজেল লোকোমোটিভ ওয়ার্কস কোথায় অবস্থিত ?
Ans. উত্তরপ্রদেশের বারাণসী ।
11. ইন্টিগ্রাল কোচ ফ্যাক্টরী কোথায় অবস্থিত ?
Ans. তামিলনাড়ুর পেরাম্বুর ।
12. পশ্চিমবঙ্গের ‘জেসপ এ্যান্ড কোং’ নাম সরকারী সংস্থায় কী তৈরী হয় ?
Ans. মালগাড়ি ও যাত্রীবাহী গাড়ি ।
13. ভারতের বৃহত্তম জাহাজ নির্মাণ কারখানা কোনটি ?
Ans. বিশাখাপত্তনমের হিন্দুস্থান শিপ ইয়ার্ড ।
14. ভারতের প্রথম সুতাকলটি কোথায় স্থাপিত হয় ?
Ans. ঘুসুড়ি
15. কোন শহরকে ‘ভারতের ম্যাঞ্চেস্টার’ বলা হয় ?
Ans. আহমেদাবাদ ।

16. ভারতের সর্বাধিক কাপড় কল আছে কোন রাজ্যে ?
Ans. গুজরাট ।
17. ভারতের প্রথম পাটকলটি কোথায় স্থাপিত হয়েছিল ?
Ans. পশ্চিমবঙ্গের রিষড়ায় ।
18. প্রথম শ্রেণীর শহর বলা হয় শহরকে তার জনসংখ্যা কত ?
Ans. ১ লক্ষের বেশী ।
19. মহানগর বলা হয় সেই শহরকে, যার জনসংখ্যা কত?
Ans. ১০ লক্ষের বেশী ।
20. ভারতের বৃহত্তম বিমানবন্দর কোনটি ?
Ans. ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, দিল্লী ।
21. ‘ভারতের প্রবেশ দ্বার’ বলা হয় কোন শহরকে ?
Ans. মুম্বাই ।
22. ভারতের মূলধনের রাজধানী বলা হয় কোন শহরকে ?
Ans. মুম্বাইকে ।
23. ভারতের অধিকাংশ হিন্দী চলচ্চিত্র নির্মিত হয় কোথায় ?
Ans. মুম্বাইয়ে ।
24. ভারতের রাজধানী কলকাতা থেকে দিল্লীতে কত সালে স্থানান্তরিত হয় ?
Ans. ১৯১১ সালে ।
25. ওয়েলিংডন বিমানঘাঁটি কোথায় অবস্থিত ?
Ans. ব্যাঙ্গালোরে ।
26. ভারতের পঞ্চম বৃহত্তম মহানগর কোনটি ?
Ans. ব্যাঙ্গালোর ।
27. সালারজঙ্গ জাদুঘর কোথায় অবস্থিত ?
Ans. হায়দ্রাবাদে ।
28. হায়দ্রাবাদের যমজ শহর কোনটি ?
Ans. সেকেন্দ্রাবাদ ।
29. হায়দ্রাবাদ শহরটি কোন নদীর তীরে অবস্থিত ?
Ans. মুসী নদীর তীরে ।
30. কোন শহরকে ভারতের বিজ্ঞান নগরী বলা হয় ?
Ans. ব্যাঙ্গালোরকে ।

31. ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্যাল ল্যাবরেটরী কোথায় অবস্থতি ?
Ans. ব্যাঙ্গালোরে ।
32. আহমেদাবাদ শহরটি কোন নদীর তীরে অবস্থিত ?
Ans. সবরমতী নদীর তীরে ।
33. উত্তরপ্রদেশের সর্বপ্রধান শিল্পকেন্দ্র কোনটি ?
Ans. কানপুর ।
34. লক্ষণৌ শহরটি কোন নদীর তীরে অবস্থিত ?
Ans. গোমতী নদীর তীরে ।
35. কোন শহরকে ‘গোপালী শহর’ বলা হয় ?
Ans. জয়পুরকে ।
36. ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্রটি কোথায় অবস্থিত ?
Ans. কোচিনে ।
37. কেন্দ্রীয় মৎস্য শিকার কেন্দ্র ও মৎস্য গবেষণাগারটি ভারতের কোন শহরে অবস্থিত ?
Ans. কোচিনে ।
38. বরোদা শহরের নতুন নাম কী ?
Ans. ভাদোদরা ।
39. দক্ষিণ ভারতের শ্রেষ্ঠতম মন্দির ‘মিনাক্ষী মন্দির’ কোথায় অবস্থিত ?
Ans. মাদুরাইতে ।
40. কোন শহরকে দাক্ষিণাত্যের কাশী বলা হয় ?
Ans. মাদুরাই ।
41. কাশী বিশ্বনাথ মন্দির কোথায় অবস্থিত ?
Ans. বারাণসীতে ।
42. হিন্দুস্থান শিপইয়ার্ড কোথায় অবস্থিত ?
Ans. বিশাখাপত্তনমে ।
43. হুগলী নদীর তীরবর্তী কলকাতা বন্দর কোন ধরণের বন্দর ?
Ans. নদী বন্দর ।
44. বোম্বাই বন্দর কোন ধরণের বন্দর ?
Ans. সমুদ্র বন্দর ।
45. ভারতের সর্বশ্রেষ্ঠ্র সামুদ্রিক বন্দর কোনটি ?
Ans. মুম্বাই ।

46. যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে কোন বন্দরটি ভারতের মধ্যে প্রথম স্থান ?
Ans. মাদ্রাজ ।
47. মোট মাল পরিবহনের ক্ষেত্রে কোন বন্দরটির স্থান ভারতের মধ্যে প্রথম ?
Ans. মুম্বাই ।
48. ভারতে আমদানী বাণিজ্যে কোন বন্দরের স্থান প্রথম ?
Ans. মুম্বাই ।
49. ভারতে রপ্তানী বাণিজ্যে কোন বন্দরের স্থান প্রথম ?
Ans. মার্মাগাঁও ।
50. ভারতে অধিকাংশ লৌহ-আকরিক কোন বন্দর থেকে বিদেশে রপ্তানী করা হয় ?
Ans. মার্মাগাঁও ।
51. ভারতের আমদানী বাণিজ্যে কলিকাতা বন্দরের স্থান কত ?
Ans. দ্বিতীয় ।
52. ‘ডলফিনস নোজ’ নামক অন্তরীপ দ্বারা পরিবেষ্ঠিত বন্দরটির নাম কী ?
Ans. বিশাখাপত্তনম ।
53. ভারতের প্রথম হাইটেক বন্দর কোনটি ?
Ans. নভসেবা ।
54. নভসেবা বন্দরটির নতুন নাম কি ?
Ans. জওহরলাল নেহেরু বন্দর ।
55. ওখা বন্দরটি কোন রাজ্যে অবস্থিত ?
Ans. গুজরাট








         





Tuesday, 24 September 2019

Regional dances of India (ভারতের আঞ্চলিক নৃত্যসমূহ)




Regional dances of India (ভারতের আঞ্চলিক নৃত্যসমূহ) :


(১) বাগুরুম্বাঃ- আসাম রাজ্যের নৃত্য।
(২) বিহুঃ- আসাম রাজ্যের নৃত্য।
(৩) ভাংড়াঃ- পাঞ্জাব রাজ্যের নৃত্য।
(৪) ভারতনাট্যমঃ- তামিলনাড়ু রাজ্যের নৃত্য।
(৫) ডান্ডিয়াঃ- গুজরাট রাজ্যের নৃত্য।
(৬) গর্বাঃ- গুজরাট রাজ্যের নৃত্য।
(৭) ঘুমরঃ- রাজস্থান রাজ্যের নৃত্য।
(৮) ঝুমুরঃ- পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, ছত্তিশগড়, আসাম ও ওড়িশা রাজ্যের নৃত্য।
(৯) কথাকলিঃ- কেরালা রাজ্যের নৃত্য।
(১০) মোহিনীনাট্যমঃ- কেরালা রাজ্যের নৃত্য।
(১১) কুচিপুড়িঃ- অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের নৃত্য।
(১২) কোলিঃ- মহারাষ্ট্র রাজ্যের নৃত্য।
(১৩) লবনিঃ- মহারাষ্ট্র রাজ্যের নৃত্য।
(১৪) ওড়িশিঃ- ওড়িশা রাজ্যের নৃত্য।
(১৫) পন্থিঃ- ছত্তিশগড় রাজ্যের নৃত্য।
(১৬) কত্থকঃ- উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের নৃত্য।
(১৭) যক্ষগণঃ- কর্ণাটক রাজ্যের নৃত্য।
(১৮) ভামাকল্পমঃ- অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের নৃত্য।
(১৯) ফাগঃ- হরিয়াণা রাজ্যের নৃত্য।
(২০) মাটকিঃ- মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের নৃত্য।
(২১) হোজাগিরিঃ- ত্রিপুরা রাজ্যের নৃত্য।
(২২) বুইয়াঃ- অরুণাচল প্রদেশ রাজ্যের নৃত্য।
(২৩) গম্ভীরাঃ- পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নৃত্য।
(২৪) সুগ্গিঃ- কর্ণাটক রাজ্যের নৃত্য।
(২৫) সরহুলঃ- ঝাড়খন্ড রাজ্যের নৃত্য।
(২৬) নুপাঃ- মণিপুর রাজ্যের নৃত্য।
(২৭) লাহোঃ- মেঘালয় রাজ্যের নৃত্য।
(২৮) চেরাউঃ- মিজোরাম রাজ্যের নৃত্য।
(২৯) রংমাঃ- নাগাল্যান্ড রাজ্যের নৃত্য।
(৩০) রউফঃ- জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের নৃত্য।







         



Saturday, 31 August 2019

Introduction to different continents (একনজরে বিভিন্ন মহাদেশ পরিচিতি)





একনজরে বিভিন্ন মহাদেশ পরিচিতিঃ


১. এশিয়া মহাদেশঃ

** পৃথিবীর বৃহত্তম মহাদেশ : এশিয়া।

** এশিয়ার ভৌগোলিক অবস্থান : ১০ডিগ্রী দক্ষিণ থেকে ৭৮ডিগ্রী উত্তর অক্ষাংশ এবং ২৫ ডিগ্রী পূর্ব থেকে ১৭০ডিগ্রী পশ্চিম দ্রাঘিমা পর্যন্ত-বিস্তৃত।

** মহাদেশ দুটিকে একসাথে ইউরেশিয়া বলা হয় : এশিয়া ও ইউরোপ

** এশিয়া ও ইউরোপকে ইউরেশিয়া বলা হয় : ইউরোপ মহাদেশের সাথে স্থল দ্বারা এশিয়া মহাদেশ যুক্ত হওয়ায়।

** এশিয়া মহাদেশ অন্যান্য মহাদেশের চেয়ে বড় : আফ্রিকার প্রায় ১.৫, উত্তর আমেরিকার ১.৮২, দক্ষিণ আমেরিকার প্রায় ২.৪, ইউরোপের প্রায় ৪.১৯, অষ্ট্রেলিয়ার ৫.৭৩ এবং এন্টার্কটিকা ৩.১২ গুণ বড়।

** এশিয়া মহাদেমেশর আয়তন : ৪ কোটি ৪৫ লাখ ৭৯ হাজার বর্গ কিলোমিটার।

** এশিয়া মহাদেশের আয়তন পৃথিবীর মোট আয়তনের শতাংশ : ৩০ শতাংশ।

** এশিয়া মহাদেশের জনসংখ্যা : ৪১২ কোটি ১১ লাখ [UNFPA ২০০৯]।

** এশিয়া মহাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু : মাউন্ট এভারেষ্ট। (৮৮৫০ মি)

** এশিয়া মহাদেশের সর্বনিম্ন বিন্দু : মৃত সাগর। (-৪০০ মি)

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম উপদ্বীপ : আরব উপদ্বীপ।

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম দ্বীপ : বোর্নিও।

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম সাগর : দক্ষিণ চীন সাগর।

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম হ্রদের নাম : কাস্পিয়ান। উল্লেখ্য, এটি এশিয়া এবং ইউরোপ মহাদেশে অবস্থিত।

** এশিয়া মহাদেশের গভীরতম হ্রদের নাম : বৈকাল হ্রদ।

** এশিয়া মহাদেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ : মাউন্ট এভারেষ্ট; অবস্থান চীন-নেপাল সীমান্ত।

** এশিয়া মহাদেশের দীর্ঘতম নদীর নাম : ইয়াংসিকিয়াং (চীন)।

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম মরুভূমি : গোবি মরুভূমি, অবস্থান চীন-মঙ্গোলিয়া।

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম সমভূমির নাম : পশ্চিম সাইবেরীয় সমভূমি।

** আয়তনে এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : চীন।

** জনসংখ্যায় এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : চীন (১৩৪ কোটি ৫৮ লাখ) [UNFPA ২০০৯]।

** আয়তনে এশিয়া মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : মালদ্বীপ।

** জনসংখ্যায় এশিয়া মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : মালদ্বীপ (৩ লাখ) (UNFPA ২০০৯]।

** এশিয়া মহাদেশের সর্ব পশ্চিমের বিন্দুর নাম : বেবা অন্তরীপ।

** এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম অরণ্য : তৈগা।

** এশিয়া মহাদেশের স্বাধীন দেশ : ৪৪টি।

** এশিয়া মহাদেশের ৪৪তম স্বাধীন দেশ : পূর্ব তিমুর।

** এশিয়ার সর্ব উত্তরের বিন্দু : চেলিউসকিন অন্তরীপ ।

২. ইউরোপ মহাদেশঃ


** ইউরোপ মহাদেশের আয়তন : ৯৯ লাখ ৩৮ হাজার বর্গ কিলোমিটার (পূর্ব-পশ্চিমে দৈর্ঘ্য ৬,৪০০ কিলোমিটার এবং উত্তর-দক্ষিণে ৪৮০০ কিলোমিটার)।

** পৃথিবীর মোট আয়তনের শতাংশ ইউরোপ : ৬.৮ শতাংশ।

** ইউরোপ মহাদেশের জনসংখ্যা : ৭৩ কোটি ২২ লাখ

** আয়তনে ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম দেশের নাম : রাশিয়া।

** জনসংখ্যায় ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : রাশিয়া; ১৪ কোটি ৯ লাখ।

** আয়তনে ইউরোপ মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : ভ্যাটিকান সিটি।

** জনসংখ্যায় ইউরোপ মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : ভ্যাটিকান সিটি (৯২০ জন; মে ২০১০)।

** ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম উপদ্বীপ : স্ক্যান্ডিনেভিয়া।

** ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম দ্বীপ : গ্রিনল্যান্ড।

** ইউরোপ মহাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু : মাউন্ট এলব্রাস।

** ইউরোপ মহাদেশের সর্বনিম্ন বিন্দু : কাষ্পিয়ান সাগর।

** ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম সাগরের নাম : ভূমধ্যসাগর।

** ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম হ্রদ : লাডোগা হ্রদ।

** ইউরোপ মহাদেশের দীর্ঘতম পর্বতমালা : আল্পস।

** ইউরোপ মহাদেশের দীর্ঘতম নদীর নাম : ভলগা।

** ইউরোপ মহাদেশের বৃহত্তম সমভূমি : মধ্য ইউরোপের বিস্তীর্ণ সমভূমি।

** ইউরোপের দ্বার বলা হয় শহরকে : ভিয়েনা।

** ইউরোপের বৃহত্তম সুড়ঙ্গপথের নাম : চ্যানেল টানেল।

** ইউরোপের ককপিট বলা হয় বেলজিয়াম দেশকে।

** ইউরোপ মহাদেশের স্বাধীন দেশ : ৪৮টি।

৩. আফ্রিকা মহাদেশঃ


** পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম মহাদেশ : আফ্রিকা।

** আফ্রিকা মহাদেশের আয়তন : ৩ কোটি ৬৫ হাজার বর্গকিমি।

** আয়তনে আফ্রিকা মহাদেশ পৃথিবীর মোট : ২০ শতাংশ।

** আফ্রিকা মহাদেশের জনসংখ্যা : ১০০ কোটি ৯৯ লাখ

** আয়তনে আফ্রিকা মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : সুদান।

** আয়তন ও জনসংখ্যা আফ্রিকা মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশের নাম : সিচেলেস।

** জনসংখ্যায় আফ্রিকা মহাদেশের বৃহত্তম দেশের নাম : নাইজেরিয়া (১৫ কোটি ১৫ লাখ)

** আফ্রিকা মহাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু : কিলিমাঞ্জারো (তাঞ্জানিয়া)।

** আফ্রিকা মহাদেশের সর্বনিম্ন বিন্দু : লেক আসাল (জিবুতি)।

** আফ্রিকা মহাদেশের বৃহত্তম মরুভূমির নাম : সাহারা।

** আফ্রিকা মহাদেশের দীর্ঘতম নদীর নাম : নীলনদ।

** আফ্রিকা মহাদেশের বৃহত্তম দ্বীপ : মাদাগাস্কার।

** আফ্রিকা মহাদেশের স্বাধীন দেশ : ৫৩টি।

৪. উত্তর আমেরিকা মহাদেশঃ


** পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম মহাদেশ : উত্তর আমেরিকা।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের আয়তন : ২ কোটি ৪৪ লাখ ৭৪ হাজার বর্গ কিমি।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশ পৃথিবীর মোট আয়তনের ১৬.৫ শতাংশ।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের জনসংখ্যা : ৫৪ কোটি ১৭ লাখ।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের প্রতি বর্গ কিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব : ১৫ জন।

** আয়তনে উত্তর আমেরিকা মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : কানাডা।

** জনসংখ্যায় উত্তর আমেরিকা মহাদেশের বৃহত্তম দেশের নাম : যুক্তরাষ্ট্র (৩১ কোটি ৪৭ লাখ)।

** আয়তনে উত্তর আমেরিকা মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : সেন্ট কিটস এন্ড নেভিস।

** জনসংখ্যায় উত্তর আমেরিকা মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : সেন্ট কিটস এন্ড নেভিস।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু : ম্যাককিনলি (যুক্তরাষ্ট্র)।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের সর্বনিম্ন বিন্দু : ডেথ ভ্যালি (যুক্তরাষ্ট্র)।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের বৃহত্তম হ্রদ : সুপিরিয়র।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের দীর্ঘতম নদীর নাম : মিসিসিপি।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের উষ্ণতম স্থান : ডেথ ভ্যালি (ক্যালিফোর্নিয়া)।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের গভীরতম গিরিখাত : গ্র্যান্ড ক্যানিয়ন।

** উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা বিচ্ছিন্নকারী খালের নাম : পানামা খাল।

** আয়তনে উত্তর আমেরিকা মহাদেশের বৃহত্তম জলপ্রপাতের নাম : নায়াগ্রা।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরি : মেক্সিকোর পোপোক্যাটপেল।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের বৃহত্তম পার্ক : কানাডার উড বাফেলো।

** উত্তর আমেরিকা মহাদেশের স্বাধীন দেশ : ২৩টি।

৫. দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশঃ


** দক্ষিণ আমেরিকার আয়তন : ১ কোটি ৭৮ লাখ ১৯ হাজার বর্গকিমি।

** দক্ষিণ আমেরিকা পৃথিবীর মোট আয়তনের শতাংশ : ১২ শতাংশ।

** দক্ষিণ আমেরিকার জনসংখ্যা : ৩৮ কোটি ৯১ লাখ।

** দক্ষিণ আমেরিকার উপকূল রেখার দৈর্ঘ্য : ২৭ হাজার ৭০০ কিলোমিটার।

** দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ পর্বতমালার নাম : আন্দিজ পর্বতমালা।

** দক্ষিণ আমেরিকার বনভূমি এর মোট আয়তনের অংশ : মোট আয়তনের ৫২ শতাংশ।

** উচ্চতা অনুযায়ী দক্ষিণ আমেরিকার উচ্চতম জলপ্রপাতের নাম : এঞ্জেল ফলস (ভেনিজুয়েলা)।

** দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ বিন্দু : একাঙ্কাগুয়া (আর্জেন্টিনা)।

** দক্ষিণ আমেরিকার সর্বনিম্ন বিন্দু : পেনিনসুলা (আর্জেন্টিনা)।

** দক্ষিণ আমেরিকার দীর্ঘতম নদী : আমাজান।

** দক্ষিণ আমেরিকার উচ্চতম (পানির পরিমাণ অনুযায়ী) জলপ্রপাত : গুয়ারিয়া (ব্রাজিল); ১৩০০ কিউবিক/ সেকেন্ড।

** জনসংখ্যার দক্ষিণ আমেরিকার বৃহত্তম দেশ : ব্রাজিল (১৯ কোটি ৩৭ লাখ)।

** আয়তনে দক্ষিণ আমেরিকার বৃহত্তম দেশ : ব্রাজিল।

** জনসংখ্যায় দক্ষিণ আমেরিকার ক্ষুদ্রতম দেশের নাম : সুরিনাম (৪,৬১,০০০)।

** আয়তনে দক্ষিণ আমেরিকার ক্ষুদ্রতম দেশ : সুরিনাম।

** দক্ষিণ আমেরিকার চির বসনে-র দেশের নাম : ইকুয়েডর।

** দক্ষিণ আমেরিকা তথা পৃথিবীর উচ্চতম রাজধানীর নাম : লাপাজ (বলিভিয়া)।

** দক্ষিণ আমেরিকায় প্রথম উপনিবেশ স্থাপন করে : স্পেন দেশ।

** দক্ষিণ আমেরিকার স্বাধীন দেশ : ১২টি।

৬. ওশেনিয়া মহাদেশঃ


** বিশ্বের ক্ষুদ্রতম মহাদেশ : ওশেনিয়া।

** ওশেনিয়া মহাদেশের আয়তন : ৮৪ লাখ ৮৪ হাজার ৬২০ বর্গকিমি।

** ওশেনিয়া মহাদেশ পৃথিবীর মোট আয়তনের ৫.৮ অংশ।

** ওশেনিয়া মহাদেশের জনসংখ্যা : ৩ কোটি ৫৪ লাখ।

** ওশেনিয়া মহাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু : পুঁসাক জায়া।

** ওশেনিয়া মহাদেশের সর্বনিম্ন বিন্দু : লেক আয়ার।

** আয়তনে ওশেনিয়া মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : অষ্ট্রেলিয়া, আয়তন ৭৬ লাখ ৮৬ হাজার ৮৫ বর্গকিমি।

** জনসংখ্যায় ওশেনিয়া মহাদেশের বৃহত্তম দেশ : অষ্ট্রেলিয়া; ২ কোটি ১৩ লাখ।

** আয়তনে ওশেনিয়া মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : নাউরু।

** জনসংখ্যায় ওশেনিয়া মহাদেশের ক্ষুদ্রতম দেশ : টুভ্যালু।

** ওশেনিয়া মহাদেশের স্বাধীন দেশ : ১৪টি।

** ওশেনিয়া মহাদেশের দীর্ঘতম নদীর নাম : মারে ডার্লিং (অষ্ট্রেলিয়া)।

** ওশেনিয়া মহাদেশের বৃহত্তম হ্রদ : আয়ার।

** ওশেনিয়া মহাদেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ : পাটজক জাজা (ইরিয়ান)।

** ওশেনিয়া মহাদেশের বৃহত্তম দ্বীপ : নিউগিনি।

৭. এন্টার্কটিকা মহাদেশঃ


** এন্টার্কটিকা মহাদেশের আয়তন : ১ কোটি ৩২ লাখ ৯ হাজার বর্গকিমি।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের আয়তন পৃথিবীর মোট আয়তনের : ৮.৯% শতাংশ।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের সক্রিয় আগ্নেয়গিরি : মাউন্ড ইরেবাস।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু : ভিন্সন ম্যাসিফ; ৫১৪০ মিটার।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের সর্বনিম্ন বিন্দু : বেন্টলে সাবগ্ল্যাসিয়াল ট্রেঞ্চ, -২৫৫৫ মিটার।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের জীবজন্তু সমূহ : এন্টার্কটিকার প্রাণীদের মধ্যে পেঙ্গুইন, তিমি ও সীল মাছ অন্যতম।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের প্রধান সম্পদ : প্রধান সম্পদ সামুদ্রিক পাথর।

** এন্টার্কটিকা মহাদেশের জলবায়ু : শৈত্যপ্রবাহ, তুষার ঝড়, মেঘময় ও কুয়াশায় মেরুদেশীয় আবহাওয়া। বড় বড় বরফখণ্ড বা আইসবার্গ উপকূল অঞ্চলকে ঘিরে রেখেছে।


Someone Referred : Click Here




         



Friday, 23 August 2019

The name of a country in geography (ভৌগোলিক ভাষায় কোনো দেশের নাম)




ভৌগোলিক ভাষায় কোনো দেশের নামঃ


০১। মুক্তার দেশ — কিউবা
০২। প্রাচীরের দেশ — চীন
০৩। নীলনদের দেশ — মিশর
০৪। ধীবরের দেশ — নরওয়ে
০৫। পবিত্র দেশ — ফিলিস্তিন
০৬। ভাটির দেশ — বাংলাদেশ
০৭। বজ্রপাতের দেশ — ভূটান
০৮। সিল্ক রুটের দেশ — ইরান
০৯। পিরামিডের দেশ — মিশর
১০। সূর্যোদয়ের দেশ — জাপান
১১। ভূমিকম্পের দেশ — জাপান
১২। শ্বেতহস্তীর দেশ — থাইল্যান্ড
১৩। চির সবুজের দেশ — নাটাল
১৪। পঞ্চনদের দেশ — পাকিস্তান
১৫। নিশীথ সূর্যের দেশ — নরওয়ে
১৬। দ্বীপের মহাদেশ — অস্ট্রেলিয়া
১৭। লিলি ফুলের দেশ — কানাডা
১৮। ম্যাপল পাতার দেশ — কানাডা
১৯। নীরব খনির দেশ — বাংলাদেশ
২০। শান্ত সকালের দেশ — কোরিয়া
২১। হাজার হ্রদের দেশ — ফিনল্যান্ড
২২। হাজার দ্বীপের দেশ — ইন্দোনেশিয়া
২৩। অন্ধকারাচ্ছন্ন মহাদেশ — আফ্রিকা
২৪। সোনালী আঁশের দেশ — বাংলাদেশ
২৫। সোনালী প্যাগোডার দেশ — মায়ানমার
২৬। নীরব শহর — রোম
২৭। চির শান্তির শহর — রোম
২৮। সাত পাহাড়ের শহর — রোম
২৯। মসজিদের শহর — ঢাকা
৩০। মন্দিরের শহর — বেনারস
৩১। বাতাসের শহর — শিকাগো
৩২। গোলাপীর শহর — রাজস্থান
৩৩। ঝর্ণার শহর — তাসখন্দ
৩৪। সাদা শহর — বেলগ্রেড
৩৫। বাজারের শহর — কায়রো
৩৬। উদ্যানের শহর — শিকাগো
৩৭। সম্মেলনের শহর — জেনেভা
৩৮। রৌপ্যের শহর — আলজিয়ার্স
৩৯। গ্র্যানাইডের শহর — এভারডিন
৪০। রাজ প্রসাদের শহর — কলকাতা
৪১। মোটর গাড়ির শহর — ডেট্রয়েট
৪২। নিশ্চুপ সড়ক শহর — ভেনিস
৪৩। পোপের শহর — ভ্যাটিকান
৪৪। দূর্গের শহর — এডিনবার্গ
৪৫। গগণচুম্বী অট্টালিকার শহর—নিউইয়র্ক
৪৬। সোনালী তরুণের শহড়—সানফ্রান্সিসকো
৪৭। রাতের নগরী — কায়রো
৪৮। নিষিদ্ধ নগরী — লাসা
৪৯। নিমজ্জমান নগরী — হেগ
৫০। স্বর্ণ নগরী — জোহান্সবার্গ
৫১। হীরক নগরী — কিম্বার্লী
৫২। রাজপ্রসাদের নগর — ভেনিস
৫৩। চির বসন্তের নগরী — কিটো
৫৪। জাঁকজমকের নগরী — নিউইয়র্ক
৫৫। ভারতের রোম — দিল্লী
৫৬। মুক্তার দ্বীপ — বাহরাইন
৫৭। লবঙ্গ দ্বীপ — জাঞ্জিবার
৫৮। ব্রিটেনের বাগান — কেন্ট
৫৯। ইউরোপের বুট — ইতালি
৬০। পবিত্র ভূমি — জেরুজালেম
৬১। আগুনের দ্বীপ — আইসল্যান্ড
৬২। পান্নার দ্বীপ — আয়ারল্যান্ড
৬৩। বাংলার ভেনিস — বরিশাল
৬৪। প্রাচ্যের ভেনিস — ব্যাংকক
৬৫। দক্ষিণের রাণী — সিডনি
৬৬। উত্তরের ভেনিস — স্টকহোম
৬৭। সমুদ্রের বধু — গ্রেট ব্রিটেন
৬৮। বিগ আপেল — নিউইয়র্ক শহর
৬৯। বিশ্বের রাজধানী — নিউইয়র্ক
৭০। প্রাচ্যের গ্রেটবৃটেন — জাপান
৭১। প্রাচ্যের ম্যানচেস্টার — ওসাকা
৭২। প্রাচ্যের ড্যান্ডি — নারায়নগঞ্জ
৭৩। চীনের দুঃখ — হোয়াংহো নদী
৭৪। ইউরোপের রুগ্ন মানুষ — তুরষ্ক
৭৫। পৃথিবীর ভূ-স্বর্গ — কাশ্মীর
৭৬। সোনার অন্তঃপুর — ইস্তাম্বুল
৭৭। বিশ্বের রুটির ঝুড়ি — প্রেইরি
৭৮। পবিত্র পাহাড় — ফুজিয়ামা
৭৯। নীল পর্বত — নীলগিরি পাহাড়
৮০। সকাল বেলার শান্তি — কোরিয়া
৮১। পৃথিবীর কসাইখানা — শিকাগো
৮২। পৃথিবীর ছাদ — পামীর মালভূমি
৮৩। পৃথিবীর চিনির আধার — কিউবা
৮৪। পৃথিবীর গুদামঘর — মেক্সিকো
৮৫। ইউরোপের ককপিট — বেলজিয়াম
৮৬। ইউরোপের ক্রিয়াঙ্গন — সুইজারল্যান্ড
৮৭। ইউরোপের প্রবেশদ্বার — ভিয়েনা
৮৮। ইউরোপের স’মিল — সুইডেন
৮৯। দক্ষিণের গ্রেট ব্রিটেন — নিউজিল্যান্ড
৯০। শ্বেতাঙ্গদের করবস্থান — গিনিকোস্ট
৯১। কানাডার প্রবেশদ্বার — সেন্ট লরেন্স
৯২। বাংলাদেশের প্রবেশদ্বার — চট্টগ্রাম
৯৩। পাকিস্তানের প্রবেশদ্বার — করাচি
৯৪। ভারতের প্রবেশদ্বার — মুম্বাই
৯৫। পশ্চিমের জিব্রাল্টার — কুইবেক
৯৬। আফ্রিকার মুক্তা — উগান্ডা
৯৭। বৃহদাকার চিড়িয়াখানা — আফ্রিকা
৯৮।ভূমধ্যসাগরের প্রবেশদ্বার–জিব্রাল্টারপ্রণালী
৯৯।সোভিয়েত ইউনিয়নের শস্যভান্ডার–ইউক্রেন
১০০। পৃথিবীর সাংস্কৃতিক রাজধানী — প্যারিস




         




Wednesday, 14 August 2019

The main Rivers and rivers of India (ভারতের প্রধান নদ নদী)


Exam, Geography, competitive, job, Education
ভারতের প্রধান নদ নদী 


ভারতের প্রধান নদ নদী :



ভারতের নদীসমূহ ভারতবাসীর জীবনে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে থাকে। পানীয় জল, সুলভ যাতায়াত ব্যাবস্থা, বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং জীবিকা নির্বাহের মাধ্যম হিসাবে, নদীগুলির ভূমিকা অনস্বীকার্য। ভারতের প্রায় সকল প্রধান শহরগুলি,নদীর তীরে কেন অবস্থিত,এর সহজে ব্যাখ্যা হিসাবেই জন-জীবনে এদের গুরুত্ব অনুধাবন করা যায়। আবার,হিন্দু ধর্মানুসারে নদীগুলির বিভিন্ন ধরণের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে এবং দেশের হিন্দু জনগোষ্ঠীর নিকট নদীগুলি পবিত্র বলে পূজিত হয়।


 বিষয় ভূগোলের 'ভারতের প্রধান নদ - নদী' এর ওপরে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর এর পিডিএফ । চাকরির পরীক্ষার প্রার্থীদের জন্য "স্বর্ণশিক্ষা" এর একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস , এখানে ভারতের প্রধান নদ -  নদীর ওপরে  প্রশ্ন ও উত্তর এই পিডিএফ এর মাধ্যমে শেয়ার করা হয়েছে । যা তোমাদের উপকারে আসবে - -







পিডিএফ সম্বন্ধে ঃ
Type : PDF
Size : 9.97 MB (Ultra HD)



সম্পূর্ণ ফাইলটি ডাউনলোড করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন





  





◪ ভারতের জলবায়ু - এর PDF : ক্লিক করুন 


এই পিডিএফ ডাউনলোড করো এবং তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ পোস্টটি শেয়ার করবে নিচের শেয়ার বাট

ভারতের জলবায়ু - Indian Climate




Exam, knowledge, English, important, competitive, job, Geography
ভারতের জলবায়ু 




ভারতের জলবায়ু - Indian Climate :


ভারতের জলবায়ু কোন স্থানের অনেক দিনের (৩৫ বছরের বেশি) আবহাওয়ার গড়কে সেই স্থানের জলবায়ু বলে। ভারতের জলবায়ু বলতে সাধারণভাবে বোঝায় এক বিশাল ভৌগোলিক ক্ষেত্রে ভারতের বৈচিত্র্যপূর্ণ আবহাওয়া পরিস্থিতি। কোপেন আবহাওয়া বর্গীকরণ অনুসারে, ভারতে ছয়টি প্রধান আবহাওয়া সংক্রান্ত উপবর্গ দেখা যায়: পশ্চিমে মরুভূমি, উত্তরে আল্পীয় তুন্দ্রা ও হিমবাহ থেকে দক্ষিণ পশ্চিমে ও দ্বীপাঞ্চলের ক্রান্তীয় আর্দ্র বর্ষণারণ্য। কোনো কোনো অঞ্চলে আবার পৃথক স্থানীয় জলবায়ুরও দেখা মেলে। দেশে মোট চারটি প্রধান ঋতু: শীত (জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি), গ্রীষ্ম (মার্চ থেকে মে), বর্ষা (জুন থেকে সেপ্টেম্বর) ও শরৎ-হেমন্ত (অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর)।


 বিষয় ভূগোলের 'ভারতের জলবায়ু' এর ওপরে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর এর পিডিএফ । চাকরির পরীক্ষার প্রার্থীদের জন্য "স্বর্ণশিক্ষা" এর একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস ,   এখানে ভারতের জলবায়ুু ওপরে  প্রশ্ন  উত্তর এই পিডিএফ এর মাধ্যমে শেয়ার করা হয়েছে ।  যা তোমাদের উপকারে আসবে



পিডিএফ সম্বন্ধে ঃ
Type : PDF
Size : 2.37 MB (Ultra HD)

সম্পূর্ণ ফাইলটি ডাউনলোড করতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন





  





◪ ভারতের প্রধান নদ নদী - এর PDF : ক্লিক করুন 


এই পিডিএফ ডাউনলোড করো এবং তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ পোস্টটি শেয়ার করবে নিচের শেয়ার বাট

Thursday, 4 July 2019

ভৌগোলিক পরিভাষা

=============================================

===============================================
#Important #exam #knowledge #wbcs #ssc #Rail #gk

==========================

1. ল্যাপিলি :- অগ্ন্যুৎপাতের সময় নির্গত অতি সছিদ্র ও ছোটছোট শিলা খন্ড l

2. ঘিবলি :-লিবিয়ার উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহ l

3. সিরোক্ক :-ভূমধ্যসাগরীয় উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহ l

4. হার্মাট্টান :-পশ্চিম আফ্রিকার উষ্ণ ও শুষ্ক ধূলিপূর্ণ বায়ুপ্রবাহ l

5. উইলিউইলি :- অস্ট্রেলিয়ার উত্তর-পশ্চিম দিকে দঃ ভারত মহাসাগরের ঘূর্ণিঝড় l

6. লু :- ভারতের মরু অঞ্চলের বায়ু প্রবাহ l

7. আঁধি :- বিহার,উত্তরপ্রদেশে গ্রীষ্মকালে প্রবাহিত ঘূর্ণিঝড় l

8. আশ্বিনের ঝড় :- দঃপশ্চিম মৌসুমী বায়ুর প্রত্যাবর্তন কালে বঙ্গোপসাগরের উষ্ণ ও আর্দ্র বায়ুর মিলনের ফলে পশ্চিমবঙ্গে সৃষ্ট ঘূর্ণাবর্ত l

9. বরদই ছিলা :- অসমে প্রবাহিত গ্রীষ্মকালীন স্থানীয় ঘূর্ণিঝড় l

10. আম্ব্র বৃষ্টি :- দক্ষিণ ভারতে গ্রীষ্মকালে প্রবাহিত ধূলিঝড়ের দ্বারা আমের ফলন নষ্টকারী বৃষ্টি l

11. পম্পেরো :- বসন্তকালে দঃ আমেরিকার আন্দিজ পর্বতের পাদদেশ থেকে আর্জেন্টিনার পম্পাস তৃণভূমির দিকে প্রবাহিত একপ্রকার উষ্ণ বায়ুপ্রবাহ l

12. সাইমুম :- উত্তর আফ্রিকার উপর দিয়ে প্রবাহিত বসন্তকালের বালুকাপূর্ণ শ্বাসরোধ কারী শুষ্ক বায়ু l

13. বার্গ :- দঃ আফ্রিকার কালাহারী মরুভূমির উষ্ণ বায়ু l

14. টাকু :- উঃ আমেরিকা মহাদেশের উঃ-পশ্চিমে অবস্থিত আলাস্কা উপদ্বীপের ওপর দিয়ে প্রবাহিত শীতল বায়ু l

15. সান্তাআনা :- ক্যালিফোর্নিয়া তে প্রবাহিত বায়ু l

16. কারাবুরান :-মধ্য এশিয়ার তুরান অববাহিকার স্থানীয় বায়ু l

17. ব্লিজার্ড :- আন্টার্কটিকার তুষারঝড় l

18. শ্লিট :-ভূপৃষ্ঠ সংলগ্ন বায়ুমণ্ডলে উষ্ণ ও শীতল মেঘ উপর নীচে অবস্থান করলে উষ্ণ মেঘে সংঘটিত বৃষ্টিপাত শীতল মেঘের মধ্যদিয়ে ভূপৃষ্ঠে আসার সময় জমাট বেঁধে নকুল দানার মতো সৃষ্ট বরফ খণ্ড l

19. হেল :- শীতল বায়ু প্রাচীরের সঞ্চারের সময় স্তূপনীরদ মেঘ থেকে উত্পন্ন বরফ খণ্ডের সম্ভার l

20. ঘূর্ণবাতের চক্ষু :- শক্তিশালী ঘূর্ণ বাৎ কেন্দ্রের গতিহীন ,শুষ্ক -প্রায় মেঘ শূন্য অবস্থায় বিরাজমান অংশ l

21. বায়ু প্রাচীর সংঘটন (Frontogenesis):- যে প্রকৃয়ায় দুই ভিন্ন ধর্মী দুটি বায়ু পুঞ্জ একে অপরের দিকে অগ্রসর হতে হতে একটি নির্দিষ্ট সীমান্তের সৃষ্টি করে l

22. বায়ু প্রাচীর বিলীন (Frontolysis):- যে প্রকৃয়ায় বায়ু প্রাচীর দ্বারা পৃথকীকৃত সমধর্মী দুই বায়ু পুঞ্জ তাদের মধ্যবর্তী তাপ-আর্দ্রতায় সমতা প্রাপ্ত হয়ে বায়ু প্রাচীরের বিলুপ্তি ঘটায় l

23. বায়ুপুঞ্জের উৎস অঞ্চল :- যেসকল অঞ্চল থেকে বায়ুপুঞ্জে একইরকম তাপমাত্রা ও সম আর্দ্রতা সঞ্চারিত হয় l

24. বিপদ রেখা (Squal Line):- মধ্য অক্ষাংশে নাতিশীতোষ্ণ ঘূর্ণবাতের প্রবাহ পথের ডানদিকে যে রেখা বরাবর ক্ষনস্থায়ী দমকা ঝড় সৃষ্টি কারী বজ্র ঝঞ্ঝা কক্ষের সৃষ্টি হয় l

25. জলবায়ু গত বিপর্যয় :- যে সমস্ত প্রাকৃতিক ঘটনা পরিবেশ ও মানুষ তথা জীবজগৎ কে আকস্মিক ভাবে প্রভাবিত করে l

26. এল – নিনো :- প্রশান্ত মহাসাগরের পূর্বাংশে শীতল কুমেরু স্রোতের শাখা ও মেরু স্রোতের প্রভাবে সৃষ্ট দক্ষিণ আমেরিকার পশ্চিম উপকূলের অনিয়মিত ,অস্থির ও অনির্দিষ্ট প্রকৃতির ব্যতিক্রমী উষ্ণ স্রোত l

27. টর্নেডো :- স্বল্প পরিসরে অত্যাধিক বায়ু চাপের পার্থক্যের জন্য ভূপৃষ্ঠে সৃষ্ট অতি ক্ষুদ্র আবর্তনশীল বিধ্বংসী বায়ুপ্রবাহ l

28. মেরু বায়ু :- সুমেরু ও কুমেরু উচ্চ চাপ অঞ্চল থেকে মেরু বৃত্ত প্রদেশের নিম্নচাপ অঞ্চল অভিমুখে প্রবাহিত নিয়ত বায়ু l

29. পশ্চিমা বায়ু :- দুই ক্রান্তীয় উচ্চচাপ বলয় থেকে দুই মেরু বৃত্ত প্রদেশিয় নিম্নচাপ বলয় অভিমুখে সারাবছর ধরে নিয়মিতভাবে প্রবাহিত নিয়ত বায়ু l

30. MonEx (Monsoon Expreriment):- বিশ্ব বায়ুমণ্ডল গবেষণা প্রকল্পের অধীনে মৌসুমী বায়ুর উত্পত্তি ও কার্যকলাপের গবেষণা সমন্ধীয় বিশেষ কর্মসূচী l

Tuesday, 25 June 2019

পশ্চিমবঙ্গ সম্পর্কে কিছু তথ্য



কবে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যটির প্রতিষ্ঠা হয়েছিল ?
উঃ ২৬ জানুয়ারী, ১৯৫০।
পশ্চিমবঙ্গের আয়তন কত?
উঃ ৮৮,৭৫২ বর্গকিমি।
পশ্চিমবঙ্গে লোকসংখ্যা কত?
উঃ ২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী, এই রাজ্যের লোক সংখ্যা ৯ কোটি ১ লক্ষেরও বেশি।
পশ্চিমবঙ্গের রাজধানীর নাম কী?
উঃ কোলকাতা।
পশ্চিমবঙ্গের বৃহত্তম শহর কোনটি?
উঃ কোলকাতা।
পশ্চিমবঙ্গের জেলার সংখ্যা কয়টি?
উঃ ২৩ টি।
পশ্চিমবঙ্গের সবচেয়ে ছোট জেলা কোনটি?
উঃ কোলকাতা।
পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলায় সবচেয়ে বেশি লোক বাস করে?
উঃ মেদনীপুর জেলায়।
পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলায় সবচেয়ে কম লোক বাস করে?
উঃ দার্জিলিং জেলায়।
পশ্চিমবঙ্গের প্রধান ভাষা কী?
উঃ বাঙলা।
পশ্চিমবঙ্গের অধিবাসীদের কী বলে?
উঃ বাঙালী।
পশ্চিমবঙ্গের প্রতিবেশী রাজ্য কি কি?
উঃ বিহার, ঝাড়খন্ড, উড়িষ্যা, সিকিম ও আসাম।
পশ্চিমবঙ্গের প্রতিবেশী দেশ কি কি?
উঃ পূর্বদিকে বাংলাদেশ এবং উত্তরদিকে নেপাল ও ভুটান অবস্থিত।
পশ্চিমবঙ্গ কোন জলবায়ুর অন্তর্গত?
উঃ মৌসুমী জলবায়ুর অন্তর্গত।
পশ্চিমবঙ্গের কোথায় অধিক বৃষ্টিপাত হয়?
উঃ দার্জিলিং ও জলপাইগুড়ি জেলায়।
পশ্চিমবঙ্গের কোথায় সবচেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয়?
উঃ বাঁকুড়া ও পুরুলিয়া জেলায়।
পশ্চিমবঙ্গবাসীর প্রধান খাদ্য কি?
উঃ ভাত।
পশ্চিমবঙ্গের কয়টি বিভাগ ও কি কি?
উঃ পশ্চিমবঙ্গে তিনটি বিভাগ। যথা- প্রেসিডেন্সি বিভাগ, বর্ধমান বিভাগ ও জলপাইগুড়ি বিভাগ।
পশ্চিমবঙ্গের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা কত?
উঃ প্রায় ৬০ হাজার।
পশ্চিমবঙ্গের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা কত?
উঃ প্রায় ৬০ হাজার।
পশ্চিমবঙ্গে কলেজের সংখ্যা কত?
উঃ ২০০টি।
পশ্চিমবঙ্গের প্রধান নদী কোনটি?
উঃ গঙ্গা।
পশ্চিমবঙ্গের সর্বোচ্চ শৃঙ্গটির নাম কী?
উঃ সান্দাকফু(৩,৬৩৬ মিটার)।
পশ্চিমবঙ্গের প্রধান ঋতু কয়টি ও কি কি?
উঃ পশ্চিমবঙ্গের প্রধান ঋতু চারটি । যথা- গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎকাল ও শীতকাল।
পশ্চিমবঙ্গের রাষ্ট্রীয় পশু কি?
উঃ মেছোবাঘ।
পশ্চিমবঙ্গের রাষ্ট্রীয় পাখিটির নাম কী?
উঃ ধলাগলা মাছরাঙা।
পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় ফুলের নাম কী?
উঃ শিউলি ফুল।
পশ্চিমবঙ্গের জাতীয় গাছের নাম কী?
উঃ ছাতিম।
পশ্চিম বঙ্গে মোট কয়টি জাতীয় উদ্যান আছে?
উঃ ছয়টি। যথা- সুন্দরবন জাতীয় উদ্যান, বক্সা জাতীয় উদ্যান, গোরুমারা জাতীয় উদ্যান, নেওড়া উপত্যকা জাতীয় উদ্যান, সিঙ্গালিলা জাতীয় উদ্যান ও জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যান।
পশ্চিমবঙ্গের কোথায় রয়্যালবেঙ্গল টাইগার দেখা যায়?
উঃ সুন্দরবনে।

Thursday, 4 April 2019

হ্রদ, প্রকৃতি ও অবস্থান

Tuesday, 12 March 2019

বিভিন্ন দেশের মধ্যবর্তী লাইন সমূহ



বিভিন্ন দেশের মধ্যবর্তী লাইন সমূহ
#Important #exam #knowledge #wbcs #ssc #gk 

বিভিন্ন দেশের মধ্যবর্তী লাইন সমূহ সম্পর্কে কিছু তথ্য দেওয়া হল - - - - - - - -
***************************************
1.ডুরান্ড লাইন-ভারত ও আফগানিস্থানের মধ্যে |
2. ম্যাকমোহন লাইন-ভারত ও চিনের মধ্যে |
3. র‌্যাডক্লিফ লাইন-ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে |
4. ১৭-তম প্যারালাল লাইন-উত্তর ও দক্ষিণ ভিয়েতনামের মধ্যে |
5. ৩৮-তম প্যারালাল লাইন-উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে |
6. ৪৯-তম প্যারালাল লাইন-আমেরিকা ও কানাডার মধ্যে |
7. হিণ্ডারবার্গ লাইন-জার্মানি ও পোল্যান্ডের মধ্যে |
8. কার্জন লাইন-পোল্যান্ড ও রাশিয়ার মধ্যবর্তী সীমারেখা |
9. সেইগফ্রাইড লাইন-জার্মানি ও ফ্রান্সের মধ্যে |
10. অডার নিসে লাইন-পূর্ব জার্মানি ও পোল্যাণ্ডের মধ্যে |
11. ম্যাগিনট (মেজিনো) লাইন-ফ্রান্স ও জার্মানির মধ্যে |
12. ম্যানারহিয়েন লাইন-রাশিয়া ও ফিনল্যাণ্ডের মধ্যে |
13. ২৪-তম লাইন-পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে(পাকিস্তানের দাবীমত) |
14. ওয়াখান করিডর-আফগানিস্তান ও চিনের মধ্যে |
15. ১৬তম লাইন-নামিবিয়া ও অ্যাঙ্গোলার মধ্যে |
16. গোলান হাইট-সিরিয়া ও ইজরায়েলের সীমান্তের মধ্যবর্তী অংশ |
16. ডানকান প্যাসেজ-দক্ষিণ আন্দামান ও ক্ষুদ্র আন্দামানের মধ্যবর্তী অংশ |
17. স্যার ক্রিক রো জলসীমা-ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে (গুজরাটে) |
18. ডেড সী-ইজরায়েল ও জর্ডন-এর সীমান্তবর্তী অংশ |
19. Loc (Line of Control)-কাশ্মীর ও পাক অধিকৃত কাশ্মীরের মধ্যবর্তী অংশ |
20. সাত-এল- আরব-ইরাক ও ইরানের মধ্যবর্তী অংশ |
21. ধনুষকোটি-বঙ্গোপসাগর ও আরবসাগরের মিলনস্থল |
22. পাটকাই ভূমি সীমান্ত-অরুণাচল প্রদেশ ও মায়ানমারের মধ্যবর্তী অঞ্চল |
23. কেইল খাল-বাল্টিক সাগর ও উত্তর সাগরকে যুক্ত করেছে |
24. সেমব্রিরো চ্যানেল-ছোট নিকোবর ও গ্রেট নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের মধ্যবর্তী অংশ |
25. সেতু সমুদ্রম্ প্রকল্প-আরব সাগর ও বঙ্গোপসাগরকে যুক্ত করেছে |






         





Sunday, 20 January 2019

ভূগোলের কিছু প্রশ্ন



১।পূর্বঘাট পাহাড়ের অপর নাম কী – মহেন্দ্ৰগিরি।
২। পশ্চিম পাহাড়ের অপর নাম কী – সহ্যাদ্রি পর্বত।
৩। নীলগিরি পার্বত্য অঞ্চলের আদিবাসীদের কী বলে – টোডা।
৪। গর্জনকোন শ্রেণির বৃক্ষ – পাতাঝরা বা, পর্ণমােচী বৃক্ষ।
৫।তিব্বতে যাওয়ার জন্য কোন গিরিপথটি সিকিম রাজ্যে আছে— নাথুলা।
৬। রাজস্থানের সমান্তরাল বালিয়াড়ির মধ্যবর্তী লম্বা হ্রদকে কী বলা হয় – ধান্দ।
৭।তুঙ্গভদ্রা বাঁধ প্রকল্পটি কোন রাজ্যে আছে-
কর্ণাটকে।
৮।ক্ৰান্তীয় চিরহরিৎ অরণ্য কোন রাজ্যে নেই – হিমাচল প্রদেশে।
৯। নােয়াভেলি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র কোন রাজ্যে আছে – তামিলনাড়ু।
১০। পশ্চিমঘাট পর্বতমালার সর্বোচ্চ শৃঙ্গ কোনটি – কোদাইকানাল।
১১। ভারতের কোথায় সােনা ও হিরের খনি আছে – পান্না ও কোলার।
১২। ভারতের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার কেন্দ্রটি কোন উপকূলে আছে – পূর্ব উপকূলে।
১৩। পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলার একটি অঞ্চল দিয়ারানামে পরিচিত – মালদহ।
১৪। কলকাতা শহর কত দ্রাঘিমায় অবস্থিত।
– ৮৮/, পূর্ব।
১৫। সুবর্ণসিরি ও ধানসিরি কোন নদীর উপনদী – ব্ৰহ্মপুত্ৰ।
১৬।আত্ৰেয়ী বা, আত্রাই নদীর তীরে আছে। কোন শহর – বালুরঘাট।
১৭। গােরগারু কোন পাহাড়ের শৃঙ্গ – অযােধ্যা।
১৮। হর মন্দির কে প্রতিষ্ঠা করেন—গুরু অর্জন।
১৯। জনসংখ্যার বিচারে পশ্চিমবঙ্গের স্থান কত – চতুর্থ।
২০। বিহারীনাথ পাহাড় আছে পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলায় – বাঁকুড়া।
২১। ল্যান্ড অফ হােয়াইট অর্কিড কাকে বলে – কার্শিয়াং।
২২।পাণ্ডুয়ার আদিনা মসজিদ পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলায় – মালদহ।
২৪। তাের্সা নদীর উৎপত্তি কোথায় – চুম্বি উপত্যকা।
২৫। পূর্বঘাট পর্বত কোন ধরণের পর্বত – ফয়জাত।
২৬। হুভু জলপ্রপাত কোন নদী থেকে সৃষ্ট – সুবর্ণরেখা।
২৭। সিয়াচেন হিমবাহ কোন পর্বতমালার অংশ – কারাকোরাম।
২৮। রাজস্থানের মরুস্থলীতে চলন্ত বালিয়াড়িকে কী বলে – থ্রিয়ান।
২৯। ভারত ও ভূটানের সীমান্ত শহরের নাম কী – ফুন্টশলিং।
৩০। নর্মদা নদী কোন পর্বত থেকে উৎপন্ন হয়েছে – মহাকাল ।
৩১। সাতপুরা পর্বতের সর্বোচ্চ শৃঙ্গের নাম কী – ধূপগড়।
৩২। কোলার হ্রদ কোন দুটি নদীর সংযােগ স্থলে আছে – কৃষা ও গােদাবরী।
৩৩। ভেম্বানাদ উপহ্রদ আছে কোন উপকূলে ।
– মালাবার।
৩৪। গঙ্গার ডান তীরের উপনদী কোনটি
— শোন।
৩৫। পাংগাং হ্রদ আছে কোথায় – লাদাখ ।
৩৬। জাতীয় বননীতি কত সালে গৃহীত হয় – ১৯৫২ সালে।
৩৭।পডসল মৃত্তিকা কোন অঞ্চলে দেখা যায় – পশ্চিম হিমালয়।
৩৮। সিন্ধু নদের প্রধান উপনদী কোনটি – শতদ্ৰু
৩৯। প্রাচীন পলি দিয়ে গঠিত মৃত্তিকাকে কী বলে – ভাঙ্গর।
৪০। ভারতের কোন ইস্পাত কারখানার
উৎপাদন ক্ষমতা সর্বাধিক – বােকারাে।
৪১। ভিলাই ইস্পাত কারখানা কোন দেশের সহায়তায় তৈরি হয় – রাশিয়া।।
৪২। ভারতের অভ্র কোথায় সর্বাধিক পাওয়া যায় – বিহার।
৪৩। পামির মালভূমি ভারতের কোন দিকে রয়েছে – উত্তর-পশ্চিম দিকে।
৪৪। শিবালিক পর্বতের উচ্চতা কত – : ৬০০-১,৫০০ মিটার।
৪৫। কোন নদীর ওপর মেত্তুর বাঁধ আছে|
— কাবেরী।।
৪৬।সাতপুরার সর্বোচ্চ শিখর কোনটি- ধূপগড়।
৪৭। সাতপুরার পূর্বাংশ কীনামে পরিচিত – মহাকাল পর্বত।
৪৮। নর্থ ইস্ট ফ্রন্টিয়ার এজেন্সি(NEFA) কোন রাজ্যের পুরনাে নাম – অরুণাচল প্রদেশ।
৪৯। নাঙ্গা পর্বতের উচ্চতা কত – ৮,১২৬
মিটার।
৫০। ভারতে সবচেয়ে বেশি কয়লা মজুত আছে কোন নদীর উপত্যকায় – দামােদর।
৫১। তুঙ্গভদ্ৰা প্ৰকল্প কোন-কোন রাজ্যের । যৌথ উদ্যোগে গড়া – আন্ধ্রা প্রদেশ ও কর্ণাটক।
৫২। ভারতের কোন রাজ্যে প্রথম নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্টতৈরি হয় – মহারাষ্ট্র।
৫৩। কোন পারমাণবিক শক্তি কেন্দ্র পুরােপুরি দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি – কালপক্কম।
৫৪। কোন রাজ্যে সব থেকে বেশি জলবিদ্যুৎ উৎপাদিত হয় – কৰ্ণাটক।
৫৫। হিনললা জলসেচ প্রকল্প পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলায় রয়েছে – বীরভূম।
৫৬। তিস্তা-মহানদীর সংযােজক খাল পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলায় আছে – জলপাইগুড়ি।
৫৭। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ : ওসানােগ্রাফি কোথায় আছে – পানাজি।
৫৮। তালকী – হিমালয়ে অবস্থিত হিমবাহ। জলপুষ্ট হ্রদকে তালবলা হয়।
৫৯। কয়েকটি তলের উদাহরণ দিন – নৈনিতাল, ভীমতাল, ওকুচিয়াতাল, সাততাল, পুনাতাল ইত্যাদি।
৬০। গঙ্গোত্রী হিমবাহের উচ্চতা কত – ৬,৬১৪ মিটার।
৬১। আরাবল্লী পর্বতের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ কোনটি
মাউন্ট আবু।
৬২। বানম কার উপনদী চম্বল নদীর।
৬৩। মধ্য প্রদেশের রাজধানী ভূপাল কোন দুটি নদীর মধ্যে অবস্থিত – বেতােয়া ও ওপাধতী
৬৪। দোদাবেতা ও মাকুর্তি কোন পর্বতে অবস্থিত নীলগিরি।
৬৫। পশ্চিমঘাট পর্বতের উচ্চতম শৃঙ্গগুলির নাম কী – হরিশ্চন্দ্রগড়, মহাবালেশ্বর, কলসুবাই।
৬৬। পশ্চিমঘাট পর্বতের দুটি গিরিপথের নাম। কী – ধলঘাট, ভােরঘাট।
৬৭। দোদাবেতার পাদদেশে কোন বিখ্যাত শৈলশহর অবস্থিত — উদগামণ্ড বাউটি।
৬৮। কোন দুটি পর্বতের মাঝে পালঘাট অবস্থিত — করিমালাই ও পাদগিরিমালাই।।
৬৯। দাক্ষিণাত্যের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ কোনটি – আনাইমুদি।
৭০।কার্ডামাম পাহাড়ের সবচেয়ে দক্ষিণের গিরিপথটির নাম কী – শেঙ্কোটা।
৭১।পশ্চিমবঙ্গের কোথায় উলফ্ৰাম খনিজ পদার্থ পাওয়া যায় – বাঁকুড়া জেলার ঝিলিমিলিতে।
৭২।পশ্চিমবঙ্গের গড় বার্ষিক বৃষ্টিপাতের। পরিমাণ কত – ১৭৫. সেন্টিমিটার।
৭৩। ৪৬। ট্রান্স হিমালয়ে সবচেয়ে উঁচু গিরিশৃঙ্গ কোনটি – লিওপার্গেল।
৭৪। ন্যাপজোন কোথায় দেখতে পাওয়া যায়।
– পশ্চিম হিমালয়ে।

Prisma Theory

Donate with